নুসরাতের মাকে হুমকি দেওয়া ফেনীর সেই এডিএম এর নাম কি চার্জসিটে আছে?

শরীরের শতকরা ৮০ ভাগ পোড়া অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসার পর গত ১০ এপ্রিল মৃত্যু হয় ফেনীর আলোচিত মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহানের।

নূসরাত জাহান রাফি

এর আগে মার্চের ২৭ তারিখে ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে এক মামলা করেছিল নিহত নুসরাতের পরিবার। সেদিনই অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

এই ঘটনারই জের ধরে ৬ এপ্রিল মাদ্রাসার ভেতরের পরীক্ষার হল থেকে ডেকে ছাদে নিয়ে গিয়ে নুসরাতের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয় কয়েকজন।

দেশজুড়ে আলোচিত এ ঘটনা তদন্তের পর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বা পিবিআই বলছে, পুরো ঘটনা উদঘাটন করেছেন তারা।

পিবিআই উপ-মহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদার আজ ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলছেন, “মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজদ্দৌলা মূল আসামী। তিনি সহ মোট ১৬ জনের সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়ে ৭২২ পৃষ্ঠার চার্জশিট আদালতে দেয়া হবে।”

তিনি বলেন, “নুসরাত হত্যার পুরো দায় ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজদ্দৌলার, যিনি নুসরাতের যৌন হয়রানির মামলায় আগেই কারাগারে ছিলেন।”

“তার নির্দেশেই সব হয়েছে এবং ১৬ জন এ ঘটনায় জড়িত। এর মধ্যে হত্যার দায় স্বীকার করে ১২ জন আদালতে জবানবন্দী দিয়েছে।”


নূসরাত হত্যা

প্রশ্ন উঠেছে, বিচার চাইতে গেলে উল্টে নূসরাতের মাকে হুমকি দেওয়া সেই এডিসির নাম চার্জসিটে আছে কিনা? ফেনীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম- রাজস্ব) পিকে এনামুল করিম নুসরাতের মাকে হুমকি দেন বলে অভিযোগ করেছিলেন নুসরাতের মা শিরিন আক্তার।

জানা যায়, ন্যায়বিচারের জন্য ফেনীর এডিএম পিকে এনামুল করিমের কাছে গিয়েছিলেন নুসরাত জাহান রাফি ও তার মা শিরিন আক্তার। কিন্তু ন্যায়বিচারের পরিবর্তে সে সময় নুসরাতের বিরুদ্ধে ‘নাটক’ সাজানোর অভিযোগ করেন তিনি।

এছাড়া নুসরাতের মৃত্যুর আগে তার মা শিরিন আক্তারকে হুমকি দিয়ে এডিএম বলেছিলেন, আপনারা প্রিন্সিপাল সিরাজ-উদ- দৌলার বিরুদ্ধে যে মামলা করেছেন, তা প্রমাণ করতে না পারলে আপনাদের বিরুদ্ধে প্রিন্সিপালের লোকজন ৫০ লাখ টাকার মানহানি মামলা করবে। জেলার সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার এমন কথায় মানসিকভাবে আরও ভেঙে পড়েন নুসরাত।

শিরিন আক্তার বলেন, অধ্যক্ষের কক্ষে আমার সামনে নুসরাত অজ্ঞান হয়ে গেলে তার মুখে পানি ছুড়ে মেরেছিলেন সোনাগাজী থানার এসআই ইকবাল। নুসরাত জাহান রাফির মৃত্যুর পর গত ১৮ এপ্রিল তার মা পুলিশের কাছে দেয়া জবানবন্দিতে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

You may also like...