বিশেষ সম্পাদকীয়: অনতিবিলম্বে জায়গাটিতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হোক

ভয়ঙ্কর

আজকে আমিই জায়গাটিতে পরিবার নিয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার হতে যাচ্ছিলাম। একটুর জন্য বিপরীত দিক থেকে আসা গাড়ির সাথে আমাদের রিক্সাটি দুর্ঘটনা কবলিত হয়নি।

কচুয়া উপজেলার বাধাল বাজারের একটু আগে একটি বাঁক রয়েছে, বাঁকে একটি কালভার্ট রয়েছে, এমনিতেই জায়গাটি বিপদজনক, যেহেতু বাঁকটি মারাত্মক। সেখানে একটি সতর্কতামূলক সাইনবোর্ডও রয়েছে যাতে চালকরা আস্তে গাড়ি চালায়। 

বিস্ময়কর ব্যাপার হচ্ছে, কালভার্টের মুখে দীর্ঘদিন ধরে একজন গাছের ব্যাবসায়ী গাছ মেপে মেপে ট্রাকে তোলে এখান থেকে। রোজ সন্ধ্যায় এখান থেকে ট্রাক লোড হয়। 

আজকে আমাদের রিক্সাটিই বাসের ‍মুখোমুখি পড়ে গিয়েছিল ট্রাক পাশ কাটাতে গিয়ে। অল্পের জন্য শিশুসহ আমরা পুরো পরিবার দুর্ঘটনা কবলিত হইনি।
আমি বেশ কিছুদিন আগে গাছ মেপে মেপে ট্রাকে তুলছে এরকম একটি ছবি তুলেছিলাম। তারপর ঢাকায় চলে যাই, ভেবেছিলাম এটা সাময়িক। কিন্তু তিন মাস পর এসে দেখলাম জায়গাটা একই, বরং অারও ভয়ঙ্করভাবে ট্রাক দাঁড় করিয়ে রেখে কাঠ তোলা হচ্ছে।
এলাকার মানুষ বিস্ময় প্রকাশ করেছে এই বলে যে এই পথ দিয়ে (বাগেরহাট পিরোজপুর সড়ক) তো প্রশাসনেরও অনেক লোক যাতায়াত করেন, তাদের কি চোখে পড়ে না এটা?

অবলম্বে নির্বহী ম্যাজিস্ট্রেট পাঠিয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অপরাধীকে শাস্তি দিয়ে বন্ধ করা হোক এ ধরনের কর্মকাণ্ড, নইলে স্থানটিতে শীঘ্রই বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটবে।


You may also like...