মুক্তি হলেই একলা মানুষ

 

 

জীবনের মানে জেনেছ সবাই,

শুধু জোঁনাক পোকারা এখনও 

দিশাহীন আলো জ্বালে। 

ওরা গন্তব্য জানে,

সুখের কারাগারে কে থাকে কার জীবনে।

মুক্তি হলেই একলা মানুষ,

সে থাকে মৃতদের সাথে।

 

কম পড়লেই কঁকিয়ে ওঠে ভালোবাসাগুলো,

আমার ফূর্তি হয় এমন জোয়ার ভাটায়।

সচেতনে কষ্ট সয়ে কাব্য শুধাই। 

কিছু পূর্ণ করি না আর অামি পরিণয়ে,

মানবের প্রয়োজন বুঝতে পারি,

ওরা মরবে জানে মরতে না চেয়ে।

সুখের কাঙ্গাল অদৃশ্য সহস্র হাত আমারও চারপাশে,

দিতে হবে, নইলে ওরা বিদ্রোহী হতে চায়।

কি তবে দিতে পারি?

শাস্ত্রমতে স্বর্গ, নাকি পার্থিব যত সুখ?

নতুবা পারবে কি সহস্র শক্ত হাত দূরে

ঠেলে সামনে অগ্রসর হতে?

আমার এখন ফূর্তি হয় এমন জোয়ার ভাটায়।

সচেতনে কষ্ট সয়ে কাব্য শুধাই।

 

বেহেস্তের পথে দেয়াল তুলে একদিন

চার পায়ে দাঁড়িয়েছিলাম আমরা,

এখন ছয় পায়ে!

পরিণয় পরিব্রাজক হল, তবু

কিছু আলো জ্বেলেছি মুশড়ে পড়া এ সভ্যতায়।

হুঙ্কার শুনি, 

ভয়ে ভয়ে ঘুমপাড়ানি গান শোনাই,

শিশু ঘুমায় … 

আমরা আরও একটু আলো জ্বালাই

বিবস্ত্র ওদের ধার্মিকতায়। 

কাকে বুঝাবো ভালোবাসা

নিশ্চিত যারা ভুলেছে আদীম ভণিতায়?


দিব্যেন্দু দ্বীপ

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *