সকল শ্রেণির পাঠ্যবইয়ে গণহত্যার ইতিহাস তুলে ধরার আহ্বান

বিভিন্নস্তরের পাঠ্য বইয়ে ৭১-এর গণহত্যার পূর্ণ ইতিহাস তুলে ধরা জাতীয় দায়িত্ব বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ এবং ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট হলে মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই ২০১৭ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদের সভাপতিত্বে ‘উচ্চশিক্ষা কারিকুলামে ’৭১-এর গণহত্যা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির এবং পাকিস্তানের দুজন গবেষক আনাম জাকারিয়া ও হারুন খালিদ আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।
সভাপতির বক্তব্যে ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, স্বাধীনতার জন্য বাঙালি জাতির নজিরবিহীন আত্মত্যাগ ও পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বর গণহত্যা বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে শিক্ষা কারিকুলামে সঠিক চিত্র গুরুত্ব সহকারে অন্তর্ভুক্ত করা আমাদের জাতীয় দায়িত্ব। তিনি বলেন, এ ধারণা থেকেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চশিক্ষা কারিকুলামে ‘স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস’ শীর্ষক একটি পূর্ণ কোর্স সকল শ্রেণির শিক্ষার্থীর জন্য আবশ্যক পাঠ্য হিসেবে চালু করা হয়েছে।
আলোচনা সভায় শাহরিয়ার কবির বলেন, যে-কোনো সংজ্ঞা বিচারে ৭১-এ পাকিস্তানি বাহিনীর নির্বিচার বাঙালি হত্যা ছিল একটি জাতিকে নিশ্চিহ্ন করার হত্যাকান্ড বা জোনোসাইড। পাকিস্তানের উচিত ছিল বহু পূর্বেই এ জন্য বাঙালিদের নিকট নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়া।
পাকিস্তানি দুই গবেষক মিস আনাম জাকারিয়া ও হারুন খালিদ বলেন, ৭১-এ বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যাকাণ্ড ছিল মানবতার বিরোধী অপরাধ। কোনো অবস্থায়ই কোনো মানুষ অপর কোনো মানুষের ওপর এরূপ হত্যাকাণ্ড চালাতে পারে না।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ’৭১-এর গণহত্যার ওপর ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু, প্রফেসর নোমান উর রশীদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


#সূত্র: অনলাইন
Share on FacebookTweet about this on TwitterShare on Google+Email this to someonePrint this page

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *