গ্রামবাংলা: একটি বৃষ্টিস্নাত দুপুর

গিয়েছিলাম বাগেরহাট জেলার কচুয়া উপজেলার রঘুদত্তকাঠী গ্রামে। মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে সেদিন সেখানে এই মধ্য বৈশাখে। যেহেতু বাগেরহাটের গ্রামে গ্রামে পানীয় জলের তীব্র সংকট, তাই গ্রামের মানুষ অপেক্ষা করে থাকে কখন বৃষ্টি নামে। কাঙিক্ষত সেই বৃষ্টি নামলে গ্রামের নারীরা বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। ছবিতে বৃষ্টিস্নাত গ্রামবাংলা এবং পানী ধরার কিছু দৃশ্য।

গ্রামবাংলা

উঠান ভর্তি পানি। মূষলধারে বৃষ্টি হওয়ায় মুহূর্তে এমন পানি জমেছে।

মসনী

পানি পড়ছে ঘরে। পুরনো ঘর হলে প্রতি বর্ষায়ই গ্রামের টিনের ঘরগুলো একটু ঠিকঠাক করে নেয়ার প্রয়োজন পড়ে, না হলে পুরনো টিনের ফুটো দিয়ে পানি পড়ে। একসময় যখন খড়ের ঘর ছিল গ্রামে তখন অবশ্য প্রতি বর্ষার আগে নতুন করে চালা বানাতে হতো।

ছোট্ট শিশু উপভোগ করছে বুষ্টিস্নাত দুপুর।

বৃষ্টির পনি ধরছে একজন গ্রাম্য বধু।

গৌরহরি দাসের বাড়ি।

ঘরের সকল পাত্রে পানি ধরে রাখতে পারলে অন্তত এক মাসের জন্য পানির সমস্যার সমাধান হবে। এজন্য তাঁদের এত তোড়জোড়।

You may also like...